গ্রেপ্তার সাহেদের রিজেন্ট হাসপাতাল লিমিটেড

বিগণবিডি ডেস্ক: করোনা টেস্টের ভুয়া রিপোর্ট প্রদান, অর্থ আত্মসাৎসহ নানা প্রতারণার অভিযোগে রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মো. সাহেদকে বুধবার গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। সাহেদের মতো ব্যক্তিদের এ ধরণের প্রতারণা জনগণকে করোনা টেস্ট করাতে নিরুৎসাহিত করতে পারে বলে বিশেষজ্ঞের বরাত দিয়ে খবর প্রকাশ করেছে মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন।

মহামারীর সময় মেডিকেল জালিয়াতির অভিযোগে গ্রেপ্তার হওয়া সাহেদই বাংলাদেশের প্রথম ব্যক্তি নন। গত সপ্তাহেই আরো একটি বেসরকারি হাসপাতালের মালিককে আটক করা হয়েছে করোনা পরীক্ষা না করেই ভুয়া সার্টিফিকেট দেওয়ার অভিযোগে। বিশেষজ্ঞরা উদ্বেগ প্রকাশ করে বলেন, বাংলাদেশে করোনার নমুনা পরীক্ষা করার সক্ষমতা এমনিতেই কম। তার মধ্যে এ ধরণের কেলেঙ্কারি মানুষকে করোনা টেস্ট করাতে নিরুৎসাহিত করতে পারে। মার্চ মাস থেকে দেশে প্রতিদিন নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১৩ হাজার থেকে ১৭ হাজারের মধ্যে। ১৬ কোটি জনগণের দেশে যা তুলনামূলকভাবে বেশ কম। তাছাড়া পরীক্ষার ফল পেতে দেরি হওয়া, লম্বা লাইনে দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষার মতো ঘটনা তো আছেই। নতুন করে সাহেদের মতো ব্যক্তিদের এ ধরণের প্রতারণা করোনা পরীক্ষার প্রতি জনগণের আস্থাকে প্রভাবিত করবে।

জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের বুধবার পর্যন্ত তথ্য অনুসারে, বাংলাদেশের ১ লাখ ৯৩ হাজার ৫০০ জনেরও বেশি লোক করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন, যাদের মধ্যে ২৪৫৭ জন মারা গেছেন। তবে অনেকেই উদ্বিগ্ন যে সীমিত টেস্ট ক্যাপাসিটির কারণে আসল সংখ্যাটি অনেক বেশি হতে পারে। বিশেষ করে রাজধানী ঢাকার মতো ঘনবসতিপূর্ণ অঞ্চলগুলোতে সংবেদনশীল জনগোষ্ঠীর সুরক্ষার জন্য বেশি কিছু না করার জন্য সরকারের সমালোচনা করেছেন সমালোচকরা। বাংলাদেশ ৬৮ দিনের লকডাউনেও থাকলেও অর্থনীতির চাকা ঠিক রাখতে জুনের এক তারিখ থেকে সীমিত পরিসরে সকল কল-কারখান খুলে দেওয়া হয়। তবে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং সরকারী অফিস খোলা থাকলেও শিক্ষা-প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়েছে।