বিগণবিডি ডেস্ক: সীমান্তরক্ষা বাহিনীর টার্গেটে থাকা স্থানীয় অপরাধ সিন্ডিকেটের সাথে সংঘর্ষের কারণেই ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে বাংলাদেশি হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটছে। শনিবার ভারতের একজন কর্মকর্তার বরাত দিয়ে এ খবর প্রকাশ করেছে দেশটির ‘দ্য হিন্দু’ পত্রিকা।

সম্প্রতি বাংলাদেশের একটি মানবাধিকার সংগঠন প্রতিবেদন প্রকাশ করে, গত ছয় মাসে ভারতের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশের ২৫ নাগরিক মারা গেছেন। এ প্রতিবেদনের কয়েকদিন পরই এমন প্রতিক্রিয়া এলো। সীমান্তের বর্তমান অবস্থা বিশ্লেষণ করে ওই কর্মকর্তা বলেন, সাম্প্রতিক মাসগুলোতে বাংলাদেশ এবং ভারতের সীমান্তরক্ষী বাহিনী আন্তর্জাতিক সীমান্ত সুরক্ষায় নিবিড় সমন্বয় বজায় রেখে চলছে। কিন্তু কিছু অপরাধ চক্র বাংলাদেশ এবং ভারতের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর টার্গেটে রয়েছে। সেসব অপরাধ চক্র বিএসএফের উপর আক্রমণ চালালেই তাদেরকে গুলি করা হয়। এ কারণে সীমান্ত হত্যার ঘটনাগুলো ঘটছে। তিনি আরও বলেন, অপরাধ প্রবণ এলাকাগুলোতে উভয় দেশই বেড়া দেওয়ার কাজ চালিয়ে যাচ্ছে। ২০১৫ সালের স্থলসীমা চুক্তির মাধ্যমে এই সীমানা নির্ধারণ করা হয়েছিল যা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের একটি বড় কূটনৈতিক অর্জন বলে বিবেচিত হয়। মানবাধিকার সংগঠন অধিকারের ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, সীমান্তে স্থিতিবস্থা বিরাজ করলেও সীমান্তহত্যা বন্ধ হচ্ছে না।